ঋষি কাপুরের প্রয়াণে ভারতে শোকের ছায়া

আন্তর্জাতিক

একদিনের ব্যবধানে বলিউডে আরেকটি নক্ষত্রের পতন। বৃহস্পতিবার (৩০ এপ্রিল) সকালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় না ফেরার দেশে পাড়ি জমান ঋষি কাপুর। তার চলে যাওয়ায় বলিউড তথা গোটা ভারতবর্ষে শোকের মাতম চলছে। সাধারণ মানুষ, রাজনীতিবিদ ও চলচ্চিত্র তারকারা শোক কাতর। বাদ যায়নি দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেদ্র মোদিও।

নরেন্দ্র মোদি টুইবার্তায় শোক প্রকাশ করে লেখেন, অসম্ভব এক প্রতিভার অধিকারী ছিলেন কাপুর জি। প্রতিভাবান অভিনেতা ছিলেন তিনি, তার কথা স্মরণ থাকবে, আমি তাকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লিখব। তার মৃত্যুতে স্তব্ধ। তার পরিবার ও ভক্তদের প্রতি সমবেদনা। ওম শান্তি।

ঋষি কাপুরকে শ্রদ্ধা জানিয়ে দেশটির পশ্চিমবঙ্গের রাজ্য সরকার মমতা ব্যানার্জি লেখেন, বলিউডের আইকন ও বহুমাত্রিক চলচ্চিত্রের অভিনেতা ছিলেন। তার মৃত্যুতে গভীরভাবে শোক প্রকাশ করছি। জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার বিজয়ী, তিনি দেড় শতাধিক ছবিতে অভিনয় করেছিলেন। তিনি নিজের অসুস্থতা মর্যাদায় ও অনুগ্রহে সহ্য করেছিলেন। তার পরিবার, বন্ধু, অনুরাগী এবং পুরো চলচ্চিত্রের ভ্রাতৃত্বের প্রতি আমার সমবেদনা।

অমিতাভ বচ্চন প্রকাশ্যে বলেছিলেন, ‘আই অ্যাম ডেসট্রয়েড।’ সেই অমিতাভ ঋষি কপুরের চলে যাওয়ায় বিষণ্ণ। তিনি বলেছেন, এক ঐতিহাসিক দলিল হয়ে থেকে গেল আজ।


ভারতের বিখ্যাত অভিনেত্রী হেমা মালিনী লিখেছেন, অবিশ্বাস্য, এইরকম উষ্ণ মানুষ কাপুর আর নেই! তার সাথে আমার অভিনয় করা সিনেমার কথা বললে এক চাদর মাইলি সি, নাসিব ইত্যাদি এবং আমার পরিচালনায়, ওহে খুদা।  সর্বদা তার সাথে এইরকম প্রাণবন্ত আলাপচারিতা! তার পরিবারের প্রতি সমবেদনা।

দক্ষিণী সিনেমার সুপার স্টার রজনী কান্ত লিখেছেন, হৃদয়গ্রাহী, শান্তিতে বিশ্রাম করুন আমার সবচেয়ে প্রিয় বন্ধু।

সালমান খান লিখেছেন, শান্তিতে বিশ্রামে চিন্তু স্যার, কাহ সুনা মাফ, শক্তি, শান্তির আলো পরিবার ও  বন্ধুদের প্রতি।


প্রসেনজিৎ লিখেছেন, এমন বিদায় কেন নিতে হয়। যেখানেই থাকুন ভালো থাকুন।

অভিনেতা ঋষি কপুরের বয়স হয়েছিল ৬৭ বছর। ১৯৭০ সালে ‘মেরা নাম জোকার’ ছবিতে প্রথম আত্মপ্রকাশ করেন। রোম্যান্টিক নায়ক হিসেবে ১৯৭৩ এ একেবারেই ভিন্ন ধারায় তার আবির্ভাব।

২০১৮ সালে তার ক্যানসার ধরা পড়ে। এক বছর বিদেশে চিকিৎসা নিয়ে গেল বছরের ১০ সেপ্টেম্বর মুম্বই ফিরেন। মাঝেমধ্যেই সংক্রমণ বা শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যায় ভুগছিলেন তিনি।

এর আগে বুধবার আরেক অভিনেতা ইরফান খান মারা যান।

Share with

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *